কয় পয়সা দাম গরিবের জীবনের

গরিব মানুষকে নিয়ে আমাদের সমাজে নানা রসিকতা চালু আছে। গরিবের মৃত্যু নিয়েও আছে রসিকতা—‘গরিবের আবার মরা! কোনোমতে চোখ বন্ধ করে পড়ে থাকা।’ গরিবের জীবনের মতো মৃত্যুও যে কম দামি, ক্ষেত্রবিশেষে মূল্যহীন—এই কথা সেটাই প্রমাণ করে।

ধনীরা তাদের ব্যবহার করে, কাজে লাগায়, কাজ শেষ হলে ছুড়ে ফেলে দেয়। ঠিক ছেঁড়া জামা-জুতোর মতো, কিংবা তার চেয়েও অদরকারীভাবে। গরিবের মৃত্যু ধনীকে স্পর্শ করে না, বরং তাদের বিরক্ত করে।

সেদিন তো রূপগঞ্জের জুসের কারখানায় আগুন লাগার ঘটনায় হাসেম ফুডসের চেয়ারম্যান বলেই ফেললেন, ‘আমি তো আর যেয়ে আগুন লাগিয়ে দেইনি। অথবা আমার কোনো ম্যানেজার আগুন লাগায়নি। শ্রমিকদের অবহেলার কারণেও আগুন লাগতে পারে।’ (ডেইলি স্টার অনলাইন, ৯ জুলাই ২০২১)। যদিও আগুন লাগলে মানুষের বের হওয়ার ব্যবস্থা বা আগুন নেভানোর যে ব্যবস্থা, সেগুলোর বালাই সেখানে ছিল না। তবে তিনি সশরীর সেখানে গিয়ে আগুন দেননি, এটা তো দিনের আলোর মতো সত্যি। তাই সাংবাদিকদের প্রশ্নে তাঁর বিরক্ত হওয়ারই কথা।

এসব কারখানার মালিক জানেন এই দেশের এক লাখ শ্রমিক এক দিনে মরে গেলেও তাঁদের কোনো সমস্যা হবে না। কেননা, আরও ১০ লাখ মানুষ শ্রমিক হওয়ার জন্য লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। ফলে যে প্রাণ এত সস্তা, যে প্রাণ মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে ইচ্ছুক, তার বিনাশে কারও কিছু আসে যায় না। পাঁচ-দশ হাজার টাকা আর সামান্য বিবৃতি দিয়েই যেখানে দায়মুক্তি পাওয়া যায়, সেখানে শ্রমিকের জীবনের জন্য এত দামি, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা কেন করবে লোকে! কেন এত বোকামি করবে! বরং সেই টাকা দিয়ে আরও কারখানা করা যায়, বিদেশে বাড়ি কেনা যায়, বিলাসবহুল গাড়ি কেনা যায়।

কিন্তু, এই যে অব্যবস্থাপনা, এটা দেখার জন্য রাষ্ট্রের অনেকগুলো দপ্তর আছে। যাদের কাজ হলো সুষ্ঠুভাবে কারখানা গড়ে না উঠলে, সেখানে শ্রমিকদের নিরাপত্তা না থাকলে, সেগুলো ঠিকঠাক করার জন্য মালিকপক্ষকে চাপ দেওয়া এবং প্রয়োজনে কারখানা বন্ধ করে দেওয়া। অর্থাৎ ধনী-গরিবের বৈষম্যের ভেতরেও গরিব যেন তার ন্যূনতম অধিকারগুলো পায়, সেটা নিশ্চিত করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। রাষ্ট্র এসব দেখভালকারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ক্ষেত্রগুলোতে একটা ভারসাম্য নিশ্চিত করবে, এটাই হলো মোদ্দা কথা। রাষ্ট্রের কাজই এটা। কিন্তু বাস্তবে আমরা কী দেখি? বাস্তবে এগুলো কেবল কথার কথা। কেবল আগুন লাগলে, কেবল দালান ধসে পড়লেই আমরা জানতে পারি কারখানা বা ভবনগুলোতে কোনো নিয়মই মানা হয়নি।

কোনো কিছু ঠিকঠাক না থাকার পরও সরকারের যে প্রতিষ্ঠানগুলো কারখানা চালানোর অনুমতি দেয়, তাদের কোনো জবাবদিহি আমরা কখনো দেখি না। কখনোই তাদের বিচারের সম্মুখীন করা হয় না। আর আমরাও যেন এতেই অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছি। বছরের পর বছর অনিয়মগুলো চলতে চলতে এখন নিয়মে পরিণত হয়েছে। সুতরাং কারখানার মালিককে আটক করলেই আমরা মনে করি যথেষ্ট হয়েছে। আমরা ধরেই নিয়েছি অন্য কারও কোনো শাস্তি হবে না।

ধনী যাতে গরিবের সঙ্গে অন্যায় না করতে পারে, সেটা নিশ্চিত করাই ছিল সরকারের কাজ। কিন্তু একসময় আমরা দেখতে পেলাম সরকারও গরিবের সঙ্গে বিমাতাসুলভ আচরণ করছে। সংসারে যে সন্তানটা বেশি অর্থবিত্তের মালিক, মা-বাবার কাছে তার কদর যেমন বেশি, সরকারের কাছেও তেমনি ধনীর দাম বেশি। এই কথা তিক্ত, কিন্তু সর্বাংশে সত্য। সে কারণেই হয়তো বিধিনিষেধ চালু থাকলেও পোশাক কারখানাসহ রপ্তানিমুখী সব কারখানা খুলে দেওয়া হলো। গণপরিবহন চালু না করেই তাঁদের কাজে যোগ দিতে বলা হয়েছে।

পরে যখন গণপরিবহন সাময়িকভাবে চালু করা হয়, ততক্ষণে হেঁটে বা ছোট ছোট যানে ‘ভেঙে ভেঙে’ শ্রমিকেরা কর্মস্থলে পৌঁছে গেছেন। এই শ্রমিকেরা শহরে এতই অপাঙ্‌ক্তেয় যে কাজ না থাকলে শহর তাদের রাখে না। কাজ না থাকলে শহরে থাকার মতো সামর্থ্য তাদের নেই। ফলে কাজ বন্ধ হলে তারা গ্রামে পরিজনদের কাছে ছুটে যায়।

শুধু পোশাক কারখানার কথাই যদি ধরা হয়, বিপুলসংখ্যক কর্মী কাজে যোগ দিতে ঢাকায় ফিরেছে। উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গ থেকে দলে দলে মানুষ ছুটে এসেছে ঢাকায়। পত্রিকা ও টেলিভিশনের খবরে আমরা দেখেছি ঢাকায় প্রবেশের মুখগুলোতে পোশাকশ্রমিকদের প্রচণ্ড ভিড়। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যখন ৩০ শতাংশের আশপাশে, তখন শ্রমিকদের জীবনের ঝুঁকির কথা কেউ একবারও ভাবেনি।

তারা বিধিনিষেধে কীভাবে এতটা পথ আসবে, সেসব নিয়ে কেউ ভাবেনি। যদি ভাবত, শুধু শ্রমিকদের আনা-নেওয়ার জন্য বাসের ব্যবস্থা থাকতে পারত। যদি ভাবত তাহলে ট্রাকের মধ্যে গাদাগাদি করে তাদের আসতে হতো না। হেঁটে, অটোরিকশায়, ট্রলারে নদী পাড়ি দিয়ে তাদের ঢাকায় আসতে হতো না। তাহলে ব্যাপারটা দাঁড়াল— ‘তোমাকে আসতে হবে, কীভাবে আসবে সেটা আমরা জানি না, কিন্তু চাকরি বাঁচাতে হলে তোমাকে আসতে হবে।’

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছিল, ঢাকার বাইরে থাকা শ্রমিকদের ৫ আগস্টের আগে আসার দরকার নেই, না এলে তাদের চাকরির ক্ষতি হবে না। কিন্তু এ কথায় শ্রমিকদের বিন্দুমাত্র আস্থা যে নেই সেটা তো দেখাই যাচ্ছে। তারা জানে চাকরি বাঁচানোর দায়িত্ব একান্তভাবে তাদের নিজেদেরই। কারখানার মালিক যদি ছাঁটাই করে দেয় তাহলে তাদের জন্য কেউ কিছু করবে না।

ফলে তারা যে যেভাবে পারছে ছুটে এসেছে ঢাকার দিকে, জীবিকার দিকে। কেননা, কাজ না থাকলে শুধু তারা নয়, তাদের পরিবারকেও অনাহারে থাকতে হবে। এই পঙ্গপালের মতো ছুটে আসার পথে যদি দু-চারজন গরিব মরেও যায়, তাতে কিছু এসে যায় না। গাদাগাদি করে আসতে গিয়ে যদি কয়েক হাজার গরিব করোনায় আক্রান্ত হয়, তাতে কিছু এসে যায় না। কারণ, তারা গরিব। তাদের জীবনের দাম প্রায় নেই।
গরিব মারা গেলে ধনীর কিছু আসে যায় না—এটা তো জানা সত্যিই। কিন্তু এখন আমরা জানলাম, গরিবের জানমাল রক্ষার দায়িত্ব যে সরকারের, সেই সরকারেরও কিছু যায়-আসে না কতিপয় গরিব মরে গেলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *