নগরীতে টিকার জন্য হাহাকার, স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

গণটিকার জন্য ভোর থেকে লাইনে দাঁড়িয়েও টিকা নিতে পারেননি অধিকাংশ মানুষ। আবার অভিযোগ উঠেছে নিজস্ব আর দলীয় লোকদের আগেভাগে টিকা দিচ্ছেন জনপ্রতিনিধিরা।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৫৪টি গণটিকা কেন্দ্রের একটি মোহাম্মদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বুধবার (১১ আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে গেটে তালা ঝুলছে ৩১নং ওয়ার্ডের এই কেন্দ্রে।

কারণ, সেখান থেকে টিকা নিতে পারবেন সাড়ে তিনশ’ জন। যাদেরকে আগেই ঢোকানো হয়েছে কেন্দ্রের ভেতরে। গেটে যারা আছেন তাদের আসতে হবে, পরের দিন বৃহস্পতিবার।

পাশের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের চিত্রটা ভিন্ন। সেই ওয়ার্ডে কিশলয় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়র কেন্দ্রে টোকেন নিয়ে যারা ঢুকেছেন তারাও সবাই পাচ্ছেন না টিকা।

আবার টিকার জন্যে গাদাগাদি করে লাইনে দাঁড়ানোর ফলে স্বাস্থ্যবিধি যেমন উপেক্ষিত হচ্ছে, তেমনি শঙ্কা আছে করোনা আক্রান্ত হওয়ার।

একই অভিযোগ সবার। ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়েও টিকা পাচ্ছে না মানুষ। যারা অনায়াসে পাচ্ছেন তারা সবাই জনপ্রতিনিধিদের নিজস্ব লোক। এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তারা।

গত পাঁচ দিনে গণটিকা পেয়েছেন রাজধানীর দুই লাখের কিছু বেশি মানুষ। এখনও সিংহভাগই রয়ে গেছে টিকার আওতার বাইরে। সারাদেশের চিত্রটাও ঠিক এমনই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.