বিদেশে গিয়ে মদ কিনে বাসায় আনতেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

বিদেশ ভ্রমণ শেষে বিভিন্ন এয়ারপোর্ট থেকে মদের বোতল কিনে বাসায় নিয়ে আসতেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে সম্প্রতি অব্যাহতি পাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীর। হেলেনা জাহাঙ্গীর আদালতে এ বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বুধবার (১৮ আগস্ট) দিবাগত রাতে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মো. আজাদ রহমান জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘হেলানা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন এবং টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশ্লিষ্ট ধারাগুলো একত্রিত করে করা মামলাটি তদন্ত করছে সিআইডি। মামলার একমাত্র এজাহারনামীয় এবং গ্রেফতার আসামি হেলেনা জাহাঙ্গীরকে (৪৭) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।’

তিনি বলেন, ‘বুধবার তিনদিনের পুলিশি রিমান্ড শেষে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে প্রেরণ করা হলে তিনি দোষ স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।’

সিআইডির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘তিনি জবানবন্দিতে জানান, তিনি প্রায়ই বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করতেন। ভ্রমণ শেষে দেশে ফেরার সময় বিভিন্ন দেশের এয়ারপোর্ট থেকে মদ কিনে আনতেন এবং সেই মদ তার বাসায় রাখতেন। বিদেশি মদের বোতলগুলো অভিযান পরিচালনা করার সময় তার বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়।’

এর আগে ২৯ জুলাই রাত ১২টার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের ৩৬ নম্বর রোডের ৫ নম্বর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। প্রায় চার ঘণ্টা অভিযান শেষে তাকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় তার বাসা থেকে বিদেশি মদ, অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, চাকু, বৈদেশিক মুদ্রা, ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়।

এরপর ৩০ জুলাই সন্ধ্যা ৭টা ৫০ মিনিটে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় গুলশান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে পাঁচদিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান থানার পরিদর্শক (অপারেশন) শেখ শাহানুর রহমান।

অপরদিকে তার আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম রাজেশ চৌধুরী তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *