আফগানিস্তান থেকে শতাধিক কুকুর-বিড়াল নিতে প্লেন পাঠাবে যুক্তরাজ্য

আফগানিস্তানে একটি পশুসেবামূলক দাতব্য সংগঠন পরিচালনা করেন ব্রিটিশ নৌবাহিনীর সাবেক সদস্য পল ফার্থিং। সেখানে তার ২৫ জন কর্মীর পাশাপাশি রয়েছে শতাধিক কুকুর ও বিড়াল।

এসব কর্মী, তাদের পরিবার ও কুকুর-বিড়ালগুলোকে নিয়ে যেতে একটি বিশেষ প্লেন পাঠাচ্ছে যুক্তরাজ্য। খবর দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্টের।

শনিবার বিবিসি রেডিও ৪-এর একটি অনুষ্ঠানে নিজের পশুসেবা সংগঠন নওজাদ প্রসঙ্গে কথা বলেছেন ফার্থলিং। তিনি তার সব কর্মী, তাদের পরিবার ও কুকুর-বিড়ালগুলোকে নিরাপদে আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।

ফার্থলিংয়ের পক্ষে প্রচারণা চালানো ডমিনিক ডায়ার বার্তা সংস্থা পিএ’কে জানিয়েছেন, ‘পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে’ নওজাদ-সংশ্লিষ্ট ৬৮ জনের ভিসা হয়ে যাওয়া উচিত। তাদের পাশাপাশি কুকুর-বিড়ালগুলোকে আনতে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বিশাল একটি প্লেন পাঠানো হতে পারে।

ডায়ার জানান, তাদের এই কাজে ব্রিটিশ সরকার, বিশেষ করে দেশটির পরিবেশমন্ত্রী সরাসরি সহযোগিতা করছেন। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের এক ধনী ব্যক্তি এই মিশনে অর্থায়ন করছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পল ফার্থলিং, তার সহকর্মী ও প্রাণীগুলোকে ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে বিমানবন্দরে পৌঁছানোই সবচেয়ে বড় বাধা বলে মনে করেন ডায়ার। তার মতে, আফগানিস্তানে যুক্তরাজ্যের পর্যাপ্ত হেলিকপ্টার না থাকা ‘হাস্যকর’।

তালেবান কাবুল দখলের পর আতঙ্কিত হাজার হাজার আফগান যখন দেশ ছাড়তে মরিয়া হয়ে উঠেছেন, তখনই বিশেষ প্লেনে কুকুর-বিড়াল নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলো যুক্তরাজ্য।

গত ১৫ আগস্ট সশস্ত্র বিদ্রোহীরা আফগান রাজধানীতে প্রবেশের পর থেকে কাবুল বিমানবন্দরে ভিড় করছেন অসংখ্য মানুষ। মূলত গত দুই দশক ধরে পশ্চিমাদের সহায়তা করা আফগানরাই তালেবানের ভয়ে দেশ ছাড়তে চাচ্ছেন। তাদের সঙ্গে ইউরোপ-আমেরিকায় গিয়ে ‘উন্নত জীবন’ গড়ার প্রত্যাশীরাও যোগ হয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *