এবার পরীমণিকে নিয়ে মুখ খুললেন নির্মাতা সোহান

মাদক মামলায় চিত্রনায়িকা পরীমনিকে তৃতীয় দফায় রিমান্ড শেষে আজ (২১ আগস্ট) আদালতে হাজির করা হয়েছে। পরীমনির ঘটনায় চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্টরা শুরুতে নীরব থাকলেও এখন অনেকেই মন্তব্য করছেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ সংবাদ মাধ্যমে পরীমনির মুক্তির দাবি জোড়ালো হচ্ছে। এই ধারাবাহিকতায় পরীমনি প্রসঙ্গে এবার কথা বলেছেন পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান।

চিত্রনায়িকা পরীমণিকে নিয়ে সোহানুর রহমান সোহান বলেন, ‘একবার একটা শুটিং ইউনিট ঢাকার বাইরে গিয়ে পাঁচ লক্ষ টাকার জন্য আটকে গিয়েছিল।

তারা ঢাকায় ফিরতে পারছিল না। তখন পরীমণি পাঁচ লাখ টাকা দিয়ে ওই ইউনিটকে ঢাকা ফিরিয়ে এনেছিল। এরকম বহু ঘটনা সে ঘটিয়েছে।’

অভিভাবক না থাকার কারণে পরীমণি নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি বলে মনে করেন সোহান। তার ভাষ্য, ‘একমাত্র নানা ছাড়া পরীমণির অভিভাবক নেই। এ কারণে মেয়েটা আনব্যালেন্সড হয়ে গিয়েছিল। অথচ পরীমণি মানুষের বিপদে-আপদে কিন্তু হেল্প করে।’

এই নির্মাতার ভাষ্য অনুযায়ী পরীমনির সঙ্গে যা ঘটেছে তাতে ‘বাড়াবাড়ি’ দেখছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘সাধারণ মেয়ে হলে তাকে নিয়ে এত কিছু হতো না।

পরীমণি যেহেতু শিল্পী, ভালো শিল্পী, সে কারণেই তাকে নিয়ে একটু বেশি হবে এটাই স্বাভাবিক। তবে শিল্পী কিন্তু তৈরি হয় না, শিল্পী গড গিফটেড।

ফলে তাকে একেবারেই আমরা ফেলে দেব তা নয়। তার অপরাধ প্রমাণ হবে কিনা এখনও বলতে পারি না। প্রমাণিত হলে তখন আমরা বুঝব আমাদের কী বলা উচিত। এখন যেটা বলবো-পরীমণির বিষয়ে অনেক বেশি বাড়াবাড়ি করা হয়েছে। এটি আরেকটু শোভনীয় হতে পারত।’

ইন্ডাস্ট্রির পক্ষ থেকে পরীমণির সুযোগ পাওয়া উচিৎ বলেও মনে করেন সোহান। তার ভাষ্য, ‘সে তো আমাদের শিল্পী। পরী হয়তো অপরাধ করছে,

তাকে বুঝিয়ে শোধরানোর সুযোগ দেয়া উচিত। শিল্পী সমিতি, পরিচালক সমিতি, প্রযোজক সমিতি-আমরা সবাই তার পাশে দাঁড়াব। আজ যা হচ্ছে জনগণ সব ভুলে যাবে। নতুন করে পরীমণিকে খুঁজে পাবে তারা। কেননা পরীমনি জাত শিল্পী। ওর মতো শিল্পীর দরকার আছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *