পরীমনিকে নিয়ে মুখ খুললেন সিয়াম জানালেন ‘অজানা তথ্য’

একটি সিনেমা শুটিং ইউনিটে এক থেকে দেড় শ কলাকুশলী থাকেন। এর মধ্যে সতর্কতা মেনে কাজকরা খুবই কঠিন। নিজে সতর্ক থেকে লাভ নেই। কারণ, এত মানুষের মধ্যে কার কী মেডিকেল কন্ডিশন,

বোঝার উপায় নেই। মেডিকেল রিপোর্ট দেখে শুটিং শুরু করার ব্যবস্থা থাকলে ভালো হতো। চর্চাটা করা উচিত।শুটিং থেকে বাড়ি ফেরার সময় কী মনে হয়?প্রচণ্ড ভয় পাই।

কারণ, আমি কতটা নিরাপদ জানি না। পরিবারে বাবা, মা, স্ত্রী আছেন; তাঁদের কথা ভেবেই ভয়টা পাই।গণমাধ্যমে তাকে নিয়ে আসা কিছু খবর নিয়ে বিব্রত ও বিরক্ত সিয়াম আহমেদ

করোনার বিধিনিষেধে আটকে থাকা ছবিগুলোর কী অবস্থা?শান, দামাল, পাপপুণ্যসহ বেশির ভাগ সিনেমার শুটিং শেষ করেছি। কিছু পোস্টের কাজ চলছে। অপারেশন সুন্দরবনসহ কিছু সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে।

সিনেমাগুলো হলে মুক্তির কথা ছিল।আমরা পরিস্থিতির শিকার। অপেক্ষায় থাকা সিনেমা ওটিটিতে মুক্তি পেলে স্বাগত। তবে বাসায় টেলিভিশনের খেলা দেখা আর মাঠে বসে খেলা দেখা—দুটিকে মেলানো যায় না।

মাঠে খেলা দেখার চাহিদা যেমন কমবে না, তেমনি হলে সিনেমা দেখার অভ্যাস দর্শকদের থাকবেই। পরিবেশটা তৈরি করে দিতে হবে।আপনি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন, নায়িকা পরীমনির সঙ্গে আপনার নাম জড়িয়ে মিথ্যাচার হচ্ছে।

কিছু ভুঁইফোড় অনলাইনে আমাকে নিয়ে মিথ্যা খবর প্রকাশ করে। তারা একধরনের শিরোনাম দিয়ে ভেতরে আরেক ধরনের খবর লিখে। শিরোনাম দেখেই অনেকেই ধরে নেন, অনেক বড় কিছু হয়েছে। এটা আমাকে ব্যক্তিগতভাবে আঘাত করেছে। কিছু মানুষের কারণে আমার পরিবার কষ্ট পেয়েছে, মর্মাহত হয়েছে।

ওয়েব সিরিজ মরীচিকায় অভিনয় করছেন সিয়াম আহমেদ ও আফরান নিশোআপনি বলেছিলেন ব্যবস্থা নেবেন?আমার ব্যবস্থা আমি নেব। জানিয়ে নেব না। যারা অপরাধী, তারা জেনে যাবেন।‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবির সেটে পরীমনি-সিয়াম।

একজন সহকর্মী হিসেবে পরীমনির গ্রেপ্তারকে কীভাবে দেখছেন?দেশের আইনি ব্যবস্থার প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা আছে। এমন কিছু হয়নি যে আমাদের আস্থা নষ্ট হয়ে যাবে। আমরা ওয়েট করছি। তিনি প্রপার জাস্টিস পাবেন। আশা করি, তিনি সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবে বের হবেন। আবারও নিয়মিত কাজে ফিরবেন। কারণ, তিনি মানুষের জন্য অনেক করেছেন। তিনি অনেক অনাহারীকে খাইয়েছেন। সংসার চলে না, এমন অনেককে সহযোগিতা করেছেন। এগুলো একজন ভালো মানুষের লক্ষণ। আমি চোখের সামনে অন্যের জন্য পরীমনিকে কিছু করতে দেখেছি। ক্ষমতা তো অনেকেরই থাকে, কতজন করেন।

‘অন্তর্জাল’–এর শুটিং চলছে?চার মাস ধরে সিনেমাটির সঙ্গে আছি। দীর্ঘদিন ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছি। সিনেমায় টেকনিক্যাল কিছু বিষয় আছে। এ জন্য ট্রেনার দেওয়া হয়েছিল। করোনার মধ্যেও অনলাইনে সিনেমার নির্মাতা দীপংকর দীপন দাদা ওয়ার্কশপের ব্যবস্থা করেছিলেন। নিজেও অনেক সিনেমা দেখে প্রস্তুতি নিয়েছি।চরকিতে আপনার অভিনীত ওয়েব সিরিজ ‘মরীচিকা’ মুক্তি পেয়েছে। কতটা সাড়া পেলেন?

মরীচিকা থেকে ব্যক্তিগতভাবে আমি অনেক কিছু পেয়েছি। অনেক সিনিয়র অভিনেতা যাঁদের দেখে বড় হয়েছি, তাঁদের ফোন পেয়েছি। তাঁরা আমার আলোচনা–সমালোচনা করেছেন। বাহবাও দিয়েছেন, আবার কোথায় আরও ভালো করা যেত বলেছেন। আর সাধারণ দর্শকের কাছ থেকে অপ্রত্যাশিত সাড়া পেয়েছি। আমাকে পুলিশের চরিত্রে দেখে অনেকেই অভিভূত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *