দিয়াবাড়ি-মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেলের ভাড়া হতে পারে ৪৮ টাকা

উত্তরা দিয়াবাড়ি থেকে যাত্রা শুরু করে ছয়টি বগিতে যাত্রী নিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে চলেছে দেশের প্রথম মেট্রোরেল। পল্লবী হয়ে ঘুরে আবার ডিপোয় ফিরে যায় ট্রেন।

এ পথে চারটি স্টেশন পারাপার হতে হয়েছে ট্রেনটিকে। প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, মেট্রোরেল প্রকল্পের সার্বিক কাজের অগ্রগতি ৬৮ দশমিক ৪৯ ভাগ। আটটি প্যাকেজের মাধ্যমে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজ চলমান রয়েছে। ৩১ জুলাই পর্যন্ত প্যাকেজ ভিত্তিক কাজের অগ্রগতির চিত্র প্রকাশ করেছে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)।

সেখানে বলা হয়েছে, প্যাকেজ-১ এর আওতায় মেট্রো রেলের ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়ন কাজ করার টার্গেট ছিল। ইতোমধ্যে সে কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ২০১৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি কাজ শেষ হয়েছে।

এতে ৭০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। প্যাকেজ-২ এর ডিপো এলাকার পূর্ত কাজ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এ প্যাকেজের পূর্ত কাজের ৯৯ ভাগ, স্থাপত্যশৈলী ও নির্মাণ কাজের ৯৫ ভাগ, মেকানিক্যাল, ইলেকট্রিক্যাল এবং প্লাম্বিং কাজের ৮১ ভাগ শেষ হয়েছে। এ প্যাকেজের সার্বিক অগ্রগতি ৯৫ দশমিক ৫০ ভাগ।

এদিকে মেট্রোরেলে প্রস্তাবিত ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত যেতে ভাড়া সর্বোচ্চ দিতে হতে পারে প্রায় ৪৮ টাকা। দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত যেতে যাত্রীপ্রতি ভাড়া গুনতে হতে পারে সর্বোচ্চ ২৮ টাকা।

আগারগাঁও থেকে কারওয়ান বাজার যেতে ভাড়া সর্বোচ্চ দিতে হতে পারে আট টাকা। কারওয়ান বাজার থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ভাড়া হতে পারে ১২ টাকা। এই ভাড়া কমলেও আরও বাড়বে না বলে সাত সদস্যের ভাড়া নির্ধারণ কমিটি সূত্রে জানা গেছে।

মেট্রোরেল আইন, ২০১৫-এর ধারা ১৮ (২) অনুযায়ী এই ভাড়ার হার প্রস্তাব করা হয়। সর্বশেষ এ প্রস্তাবের আলোকে মেট্রো রেলপথ নির্মাণ তদারকি ও পরিচালনাকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) একটি প্রস্তাব তৈরি করেছে। এই প্রস্তাব নিয়েও বৈঠক হয়েছে। কমিটি প্রস্তাবটি যাচাই-বাছাই করে দেখছে। এখন ভাড়ার হার চূড়ান্ত করবে মন্ত্রণালয়।

প্রথম প্রস্তাবিত ভাড়ার হার ধরা হয়েছিল কিলোমিটারে ২ টাকা ৪০ পয়সা। ভাড়া নির্ধারণ সংক্রান্ত কমিটির একাধিক কর্মকর্তা একটি গণমাধ্যমকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, প্রথম প্রস্তাবিত হারের চেয়ে চূড়ান্ত ভাড়ার হার বেশি হবে না। ডিএমটিসিএল-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক গণমাধ্যমকে জানান, মেট্রো রেলপথে নতুন আনা ট্রেনগুলোর পরীক্ষণ চলাচল শুরু হয়েছে। যাত্রী পরিবহনের ভাড়াও চূড়ান্ত করা হবে।

জানা গেছে, ভাড়ার হার প্রস্তাবনার ক্ষেত্রে মেট্রোরেল নির্মাণে সরকারি খাত ও বৈদেশিক ঋণের মাসিক ও দৈনিক খরচ, মেট্রোরেল পরিচালন ব্যয়, কর্মীদের বেতন, বিদ্যুৎ বিলসহ বিভিন্ন খাতকে পর্যালোচনা করেছে সংশ্লিষ্ট কমিটি। এর সঙ্গে যাত্রী পরিবহনের হিসাবও নিরীক্ষা করে কমিটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *