জলোচ্ছ্বাস কি এবং কেন হয়?

জলোচ্ছ্বাস হচ্ছে এক ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ। যখন সমুদ্রের পানি ফুলে উঁচু হয়ে উপকূলে আঘাত হানে তখন সেটিকে জলোচ্ছ্বাস বলা হয়।

সাধারণত ঘূর্ণিঝড় ও সুনামির কারণে জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি হয়। সুনামির কারণে জলোচ্ছ্বাস হলে সমুদ্রের পানি অনেকটাই উঁচু হয়ে উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

এ ধরনের জলোচ্ছ্বাসে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়। আবার সংকীর্ণ ও অগভীর নদীপথ অথবা মোহনায় প্রবল জোয়ারের কারণে সৃষ্ট তরঙ্গ থেকেও জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।

স্রোতের বিপরীতে অগ্রসর হওয়ার চেষ্টা চালায় বলে জলোচ্ছ্বাসের পানি প্রাচীরের মতো উঁচু হয়ে ওঠে। বাংলাদেশে জলোচ্ছ্বাস, বান, জোয়ার-জলোচ্ছ্বাস, ঘূর্ণি জলোচ্ছ্বাস এবং ঝড়ো জলোচ্ছ্বাস প্রায়ই কাছাকাছি বলে গণ্য করা হয়।

এ দেশে এপ্রিল অথবা মে মাসে এবং সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাস হয়। ঘূর্ণিঝড়ের তীব্রতার সঙ্গে ঘূর্ণি জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা সরাসরি সম্পর্কিত। বাতাসের গতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতাও বাড়তে থাকে।

ঘূর্ণি জলোচ্ছ্বাসের সঙ্গে অমাবস্যা অথবা পূর্ণিমা তিথির সংযোগ ঘটলে চাঁদ ও সূর্যের মিলিত আকর্ষণে সৃষ্ট প্রবল জোয়ারের ফলে জলোচ্ছ্বাসের পানির উচ্চতা অনেক বেশি হয় এবং ব্যাপক বন্যা সংঘটিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *