অল্পবয়সীদের এত হার্ট অ্যাটাক হচ্ছে কেন, চিকিৎসকের মতামত জেনে নিন

সুস্থ–সবলভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে, কোনো সমস্যা নেই। একদিন হঠাৎ শোনা যায় তার ‘হার্ট অ্যাটাক’ হয়ে গেছে। বলিউড অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লার সঙ্গেও তো তেমনটাই ঘটলো। আজকাল এমন ঘটনা হারহামেশা হচ্ছে। তাই আগে থেকে সাবধান হওয়া জরুরি।

কাদের ঝুঁকি বেশি
আজকাল ২০ থেকে ৪০ বয়সী বা তার পরবর্তী যেকোনো সময়ে হার্ট অ্যাটাকের প্রবণতা বাড়ছে। কীভাবে বুঝবেন আপনার হার্টের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা আছে–

* পারিবারিক হার্ট অ্যাটাকের ইতিহাস
* মাদকাসক্তি
* অতিরিক্ত টেনশন করা
* উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা

* হাই কোলেস্টেরল লেভেল
* শারীরিক সক্রিয়তার অভাব
* ডায়াবেটিস
* দীর্ঘ সময় ধরে ভুল খাদ্যাভ্যাস

কিছু লক্ষণ দেখা দিলে অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যান-
* আচমকা বুকে ব্যথা শুরু হলে সেটা হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ। যাকে বলা হয় মাওকার্ডিয়াল ইনফ্রাকশান। শিরার মধ্যে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে গেলেই এমনটা হয়।

আবার কিছু ক্ষেত্রে ব্লকেজের কারণে রক্ত চলাচলের গতি কমে যায়। এই সময় হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা থাকে। এক্ষেত্রে ব্যথাটা মাঝেমধ্যে চলে যায়, আবার ফিরে আসে। একটা অস্বস্তিকর চাপ ও ঝাঁকুনি অনুভূত

হয়। এরকম হলেই ততক্ষণাৎ ডাক্তারের কাছে যান।
* ব্যথা বুক ছাড়িয়ে অনেক সময় হাত পিঠ, ঘাড়, চোয়াল অথবা পেট ও পিঠের কাছেও নেমে আসে।
* এই সময় সাধারণত শ্বাস নিতে কষ্ট হয়। কখনও কখনও বুকে অস্বস্তির সঙ্গে সঙ্গে শ্বাস ছোট হয়ে আসে।

* ওপরের লক্ষণগুলোর সঙ্গে অনেকেরই ঘাম দিয়ে শরীর ঠাণ্ডা হয়ে যাওয়া, বমি বমি ভাব বা হালকা মাথাব্যথার মতো জিনিস দেখা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *