টি-টোয়েন্টি থেকে স্থায়ীভাবে বাদ পড়তে যাচ্ছে লিটন দাস এবং সৌম্য সরকার।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের জন্মলগ্ন থেকেই এই ফরম্যাটে তেমন ভাল দল ছিল না বাংলাদেশ। বিগত কয়েক বছর ধরে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেও ভালো দল গড়তে পারেনি বাংলাদেশ।

তবে জিম্বাবুয়ের মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় এবং ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ের ফলে বিশ্বকাপে বড় প্রত্যাশা ছিল টাইগারদের নিয়ে।

কিন্তু বিশ্বকাপে প্রত্যাশা প’ও পূরণ করতে পারেনি বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ব্যর্থতার কারণে এখন নড়েচড়ে বসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে আরও একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। আগামী বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নতুন করে দল গঠন করতে চায় বিসিবি।

তাইতো বিগত কয়েক মাস ধরে অফ ফর্মে থাকা ক্রিকেটরা বাদ পড়তে পারে স্থায়ীভাবে। ক্রিকেট পাড়ায় গুঞ্জন উঠেছে, দলের বাজে পারফরম্যান্সে নিয়ে বৈঠকে বসেছিল ক্রিকেট বোর্ডের কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ বড় কর্তা। সেখান থেকে এসেছে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত।

যার একটি আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নতুন করে দল গঠন করা। যার শুরু হবে এই মাসে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়ে।

আর সেক্ষেত্রে স্থায়ীভাবে বাদ পড়তে পারেন জাতীয় দলের দুই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান লিটন দাস এবং সৌম্য সরকার।

বিগত কয়েক মাস ধরে খুবই বাজে পারফরম্যান্স করছেন জাতীয় দলের এই দুই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। শুধু এই দুই ক্রিকেটারই নয় টি-টোয়েন্টি দলে আসতে পারে অনেকগুলি পরিবর্তন। এর মধ্যে রয়েছেন জাতীয় দলের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমও।

Leave a Reply

Your email address will not be published.