কুড়িগ্রামে মায়ের চেয়ে ছেলে ১৫ বছরের বড়

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের যুবক এনামুল হক ভোটার আইডি কার্ডের বয়স নিয়ে পড়েছেন বিপাকে।

বয়স নিয়ে ভুল তথ্য থাকার কারণে তার চেয়ে তার মায়ের বয়স ১৫ বছর কম হওয়ায় বিড়ম্বনাসহ নানা শঙ্কায় ভুগছেন তিনি।

মো. এনামুল হকের বাবার নাম মৃত সৈয়দ আলী আর মায়ের নাম আলেয়া বেগম। সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের ছত্রপুর মিল পাড়া গ্রামে তার বাড়ি।

আইডি কার্ডে এনামুলের জন্মতারিখ ‘১ জানুয়ারি ১৯৪৩’ দেখানো হয়েছে। আর তার মা আলেয়া বেগমের জন্মতারিখ দেখানো হয়েছে ‘১ জানুয়ারি ১৯৫৮’। এতে মায়ের চেয়ে ছেলের বয়স ১৫ বছর বেশি। অর্থাৎ এনামুলের বয়স এখন এনআইডি অনুযায়ী ৭৯ বছর। আর স্কুল সনদ অনুযায়ী বয়স ৩২ বছর।

এ বিষয়ে এনামুল হক বলেন, আমি ভোটার হওয়ার সময় তালিকা প্রস্তুতকারীকে সঠিক বয়সের কথা বললেও তিনি এ কাজটি করেছেন। তার একটি ভুলে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন কাজে আমাকে বিড়ম্বনা ও হয়রানির স্বীকার হতে হচ্ছে।

এনামুল হকের স্ত্রী বিজলি বেগম বলেন, আমার স্বামী ভোটার আইডিতে বয়স এত বেশি থাকার কারণে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন কাজে সমস্যা হচ্ছে। আমরা সমাধান করার জন্য যোগাযোগ করেছি। তারা বলছে, টিক করতে গেলে সমস্যা আছে। তাই আর ঠিক করছি না, ওই অবস্থায় আছে।

কুড়িগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম রাকিব জানান, তারা প্রয়োজনীও কাগজপত্রসহ অনলাইনে আবেদন করলে এনআইডি বিভাগ থেকে জানানো হবে, কোথায় এ আবেদনটি নিষ্পত্তি হবে। ভুল যে হয় না তা ঠিক নয়। ভুল হলে সমাধানেরও ব্যবস্থা আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.