৯ কিমি রাস্তা সাইকেল চালিয়ে গিয়েছিলেন খাবার পৌঁছাতে, ডেলিভারি বয়কে বাইক কিনে উপহার দিলেন গ্রাহক

লকডাউন হোক কিংবা সাধারণ সময়, মানুষ আরাম করে থাকতেই বেশি পছন্দ করে। কাজ থেকে ফিরে রান্নার ঝামেলা না রেখে, অনেকেই খাবার হোম ডেলিভারি করিয়ে থাকেন।

সেক্ষেত্রে কেউ অর্ডার করেন কোন নামি রেস্তোরার খাবার, আবার অনেকের পছন্দ বাড়ির হোম ডেলিভারি। তবে শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা কিংবা বর্তমান সময়ের করোনা, সবসময়ই ডেলিভারি বয়রা সঠিক সময়ে গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী খাবার ডেলিভারি দিয়ে থাকে।

আর তা দিতেও হয় সঠিক সময়ে। অনেক সময় সময়ের থেকে কিছুটা দেরি হলে, গ্রাহক কিছুটা মেজাজ হারিয়ে ফেলেন। আবার অনেক সময় সময়ের আগেই ডেলিভারি বয় পৌঁছে গেলে, গ্রাহক খুশি হয়ে কিছু অর্থ বকসিসও দিয়ে থাকেন।

এইভাবেই হায়দ্রাবাদের কিং কোটি এলাকায় জোম্যাটো ডেলিভারি এক্সিকিউটিভ বয় মহম্মদ আকিল আহমেদ গিয়েছিলেন খাবার ডেলিভারি করতে।

কিন্তু তাঁর কাছে বাইক না থাকায়, সে সাইকেলে চেপেই ২০ মিনিটেই সঠিক গন্তব্যে খাবার পৌঁছে দিয়েছিলেন মহম্মদ আকিল। খাবার পৌঁছে দেওয়ার পর মুকেশ নামের সেই ক্রেতা হিসেব করে দেখেন,

মহম্মদ আকিল প্রায় ৯ কিমি রাস্তা সাইকেল চালিয়েই খাবার ডেলিভারি দিতে এসেছিলেন। তখন তিনি ভাবলেন মহম্মদ আকিলের জন্য কিছু করবেন।

সেই ভাবনা থেকেই তখন তিনি আকিলের একটি ছবি তোলেন। তারপর সেটিকে ফেসবুকে ফুডিজ গ্রুপে পোস্ট করে সাহায্যের আবেদন জানান। ছবি আপলোড করতেই প্রথম ১০ ঘণ্টার মধ্যেই ৬০ হাজার টাকা জোগার হয়ে যায়। আর তারপর সব মিলিয়ে মোট ৭৩,৩৭০ টাকা ওই ডেলিভারি বয়ের হাতে তুলে দেন মুকেশ। শুধু তাই নয়, সেই অর্থ দিয়ে মুকেশ একটি বাইকও কিনে দিলেন মহম্মদ আকিলকে। এক অচেনা অজানা মানুষের বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিতে গিয়ে, এমন উপহার পেয়ে আবেগান্বিত হয়ে পড়েন আকিলও।

Leave a Reply

Your email address will not be published.